“এক খন্ড আকাশ”লিখেছেন-সুজন আহমেদ।

ডেস্ক রিপোর্টঃ
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  08:46 AM, 27 August 2020

আকাশে মেঘেরা ছুটাছুটি করছে।সন্ধা হওয়ার আগেই অন্ধকার নেমে এসেছে।।এমন সময় মিঠু বলল,ভাইজান চলেন বাড়ি যাই।আকাশের অবস্থা বেশি ভালা না।।খাওয়ার মাছ তো হইছেই।
শফিক আকাশের দিকে তাকিয়ে বললো, হ রে। ঠিক কইছস।।তোর ভাবিও বাড়িতে একলা ।।
তখন দুজনেই জাল গুছিয়ে বাড়ির দিকে রওনা হয়।। শফিক বাড়ি ফেরা মাত্রই শেফালি রাগান্বিত হয়ে বলে, এই তোমার আসার সময় হইলো।।। আমি কখন থেকে না খেয়ে বসে আছি।।।
কী কস বউ, তুই এখনো খাস নাই।।যা ভাত বার।। আমি হাত,মুখ দুয়ে আসি।।দুজনে এক সাথে খাব।।।।দুজনেই এক সাথে খেতে বসে।।তারা গল্প করে,হাসে।।ইতোমধ্যে মেঘগুলো বাতাসে অনেক দুর চলে গেছে।।।আকাশ এখন পরিষ্কার।।।
শফিক শার্টের হাতলে হাত দিতে
দিতে বলে,বড় একখানা পালা গানের আসর বইছে,তুই তো জানস বউ পালা গান বড্ড ভালা লাগে।
অভিমানের সুরে শেফালি বলল,যাও। তয় তাড়াতাড়ি আইবা।আমি একা খামো না কিন্তু।
শফিক ইতিমধ্যে গানের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছে।
শেফালি একা কুপি জ্বেলে ঘরে বসে থাকে। বড় গভীর ভালবাসায় আবদ্ধ তারা।শফিকের এমন উম্মাদনা বড় ভালো লাগে শেফালির।
একাকী শেফালি তাদের স্বপ্নের কথা ভাবে।
মনে মনে বলে,আমার যদি পোলা হয় তাইলে নাম রাখমু ইউনুস, আর মাইয়া হইলে মরিয়ম। আল্লাহ তায়ালার পছন্দের নাম রাখা ভালো।নামের উসিলায়ও হয়তো তিনি বেহেশত দান করতে পারেন।
প্রথম রাত্রি শেষের দিকে।বৃষ্টি শুরু হয়েছে আর সাথে ঝড় হচ্ছে। শফিক ভিজে ভিজে বাড়ি এসে বলল,রাগ করিস না বউ, গান বড্ড ভালো লাগে। আসতে মন চায় না।
শেফালি বলল,জানি।তয় ঝড়ে গাছের আম সব শেষ। সকালে গেলে একটা আমও পাওয়া যাইব না।
শফিক কলা পাতা কেটে এনে,দুজনে আম কুড়াতে যায়।তারা আম কুড়াতে থাকে। হঠাৎ আকস্মিক একটা গুলি শেফালির বুকে এসে লাগে।শেফালি চিৎকার করে মাটিতে নুয়ে পড়ে।শফিক দৌড়ে যেয়ে শেফালিকে বুকে টেনে নেয়।
শেফালি তার প্রিয় মানুষটার বুকে শেষ নিঃস্বাস ত্যাগ করতে করতে বলে,কত স্বপ্ন ছিলো, কত আশা বুনেছি দুজনে।মিলিটারি সব ধ্বংস করে দিলো।
শফিক কোন এক গোধূলি বেলায় পশ্চিম দিকে হাটতে থাকে হয়তো সূর্যটাকে স্পর্শ করবে বলে।

সুজন আহমেদ
বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়
ইতিহাস ও সভ্যতা বিভাগ

আপনার মতামত লিখুন :